সাধারণ মানুষের আরামদায়ক চলাচলের কথা চিন্তা করেই কাজ করা হচ্ছে – রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, সব যানবাহনে ভাড়া বাড়লেও ট্রেনের ভাড়া বাড়েনি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন এটা সেবামূলক। সাধারণ মানুষের আরামদায়ক চলাচলের কথা চিন্তা করেই কাজ করা হচ্ছে। ঢাকা থেকে পদ্মা লিংক প্রোজেক্টের জন্য ঢাকা নারায়ণগঞ্জ ট্রেন রেল চলাচল বন্ধ রয়েছে। আমার মনে হয় এক দুই মাসের মধ্যে এ কাজ শেষ হয়ে যাবে। তখন আমরা ট্রেন খুলে দিতে পারবো।

শনিবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রেলপথ পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থায় রেলপথকে গুরুত্ব দিচ্ছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে ঢাকা থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত পদ্মা সেতু অতিক্রম করে আমরা এটি চলাচলের জন্য উপযোগী করতে পারবো। তবে, মূল প্রকল্প ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত শেষ হবে ২০২৪ সালে। চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার দূরত্ব কমিয়ে নতুন একটি রেলপথ নির্মাণের পরিকল্পনা করা হচ্ছে। সেটার সাথেও সংযুক্ত হবে নারায়ণগঞ্জ। বর্তমানে চট্টগ্রামের সাথে ঢাকার দূরত্ব ৩২১ কিলোমিটার, সড়কটি বাস্তবায়ন করতে পারলে ২৩১ কিলোমিটার হবে। আটকে যাওয়া ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ ডাবল লাইন প্রকল্পের জন্য কিছু জায়গা কম হচ্ছে। ফলে এই অংশটা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছিল। তাই আজকে আমরা নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়রকে সাথে নিয়ে সড়কটি সরেজমিনে পরিদর্শনে এসেছি। পাশাপাশি ২নং রেল গেইটের ক্রসিংয়ের যানজট নিরসণে কি করা যায়, সেই পরিকল্পনা করছি। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে নারায়ণগঞ্জে প্রতিদিন অন্তত ৫০টি ট্রেন আসা যাওয়া করতে পারবে, সুবিধা ভোগ করবে নারায়ণগঞ্জের ৭২ শতাংশ মানুষ। সব পরিবহনের ভাড়া বেড়েছে। একমাত্র ট্রেনের ভাড়া বাড়ানো হয়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বার বার বলেছেন, ট্রেনটা হলো আমাদের সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান, জনগণকে সেবা দেওয়া আমাদের মূল লক্ষ, এটা ব্যবসার জন্য না। তাই যাতায়াত ব্যবস্থা আরও বেশি সহজ ও নিরাপদ করতে ট্রেন ব্যবস্থাকে সারাদেশে ধীরে ধীরে `

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ছাড়াও এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কামরুল আহসান, প্রকল্প পরিচালক আব্দুর রউফসহ রেলওয়ে ও জেলা প্রশাসনের বিভান্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা বৃন্দ।