ওরা বাংলাদেশকে ব্যর্থ একটি রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় – শামীম ওসমান

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এ,কে,এম শামীম ওসমান বলেছেন, চামচিকাকে পাখি বলেনা, চামচিকাই বলে। এসব চামচিকাদের নিয়ে আলোচনা করা ঠিক হবেনা। কাকের ডাক শুনতে ভালো লাগেনা কিন্তু কুকুরের ডাক শুনতে ভালো লাগে। আজ এখানে আমরা কর্মী সমাবেশ করছি, জনসভা নয়। আমরা দোষ গুন মিলেই মানুষ। রাজনীতি করি সত্য কথা বলি, সত্য রাজনীতি করি। সাংবাদিকতা পেশায় ভালোটা লেখা যায় আবার খারাপও লেথা যায়। আমি তাদেরকে অনুরোধ করবো, ভালোটা লিখুন। ভালোকে ভালো বলবেন, খারাপকে খারাপ বলবেন। স্বাধীনতা বিরোধীরা বঙ্গবন্ধুকে নয় আমাদের শৈশব-কৈশোর আর স্বপ্নকে হত্যা করেছে। আমরা সাত কোটি বাঙ্গালী থেকে এখন ১৭কোটি বাঙ্গালী। আমাদের নিয়ে গভীর ষড়যন্ত্র হচ্ছে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে। তার কারন দেশের সকল উন্নয়নমূলক কাজগুলো এগিয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রবিবার (১৩ মার্চ) বিকেলে ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এম শওকত আলীর সঞ্চালনায়  ফতুল্লার ইউনাইটেড ক্লাবে ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মী সভায় প্রধান অতিথির ব্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  

তিনি আরো বলেন, আমরা বিষ খেয়েও হজম করি। ২০০১ সালে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের কারনে আমরা ক্ষমতায় আসতে পারিনি। আপনাকে আমাকে একদিন এ পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে। বাংলাদেশকে কঠিন আঘাত করা হবে।  আর সেই আঘাতের টার্গেট হবে হাসিনা। নেত্রী বলেছেন ধৈর্য্য ধরতে তাই কাউকে কিছু বলিনা। ওরা বাংলাদেশকে ব্যর্থ একটি রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়। যে মঞ্চে দাঁড়িয়ে শেখ হাসিনাকে বকা দেয় আবার সেই মঞ্চে দাঁড়িয়ে তারা স্বাধিনতা বিরোধীদের পক্ষে কথা বলে। দলের ভেতরে ও বাইরে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। যারা দেশকে ভালোবাসে তারা যেকোন ষড়যন্ত্রকে মোকাবেলা করতে পারবে।

এ সময় তিনি কর্মীদের উদ্দেশ্যে  আরো বলেন, ফতুল্লা থানায় মোট ৪৫টি ওয়ার্ড রয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে ৫০১ জন সদস্য নিয়ে কমিটি করবেন এবং সেখানে তাদের নাম দিবেন। দলের ত্যাগী কর্মীদেরকে অবশ্যই মূ্ল্যায়ন করতে হবে। একটা কথা মনে রাখবেন, ক্ষমতা কারো চিরস্থায়ী নয়। মানুষের মনটাকে জয় করতে পারলেই অবশ্যই আগামীতে আমরা ক্ষমতায় আসবো।

এসময়  উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ওয়ালী মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ মান্নান, সহ প্রচার সম্পাদক রেহান শরীফ বিন্দু, থানা যুব লীগের সভাপতি মীর সোহেল আলী, সাধারণ সম্পাদক ফাইজুল ইসলাম, মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, এনায়েতনগর ইউপি চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান, ফতুল্লা ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান স্বপন, কাশীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আইয়ুব আলী, সাধারণ সম্পাদক এম.এ সাত্তার, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সাফায়েত আলম সানী, মতিউর রহমান মতি, মুজিবুর রহমান সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।