চুনকা সড়কে ষ্ট্যান্ডে অটোরিকশা রাখতে না পারার ক্ষোভে মালিকদের মারধর করলো শ্রমিকরা!

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার দেওভোগ নাগবাড়ি মোড় সংলগ্ন এলাকার বাবুল মোল্লার অটো রিকশার গ্যারেজের সামনের রাস্তায় ভোলাইল মেইন রোড টু শহরের আলী আহম্মদ চুনকা সড়কের রহমতউল্লা মার্কেটের সামনে অটোষ্ট্যান্ডে নাসিক সিটি কর্পোরেশন এর অবৈধ অটোরিকশা আটকের ঘটনায় এই সড়কে চলাচলরত অটো রিকশার মালিকদের উপড় চড়াও হওয়ায় মারধরের ঘটনা ঘটেছে! এ সময় অটো রিকশা মালিক বাবুল মোল্লা সহ বেশ কয়েকজন অটোরিকশা মালিক চালকদের হাতে মারধরের স্বীকার হয় বলে জানা যায়।

সোমবার (১৪ জুন) বিকেলে দেওভোগ পানির ট্যাংকী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই সড়কে চলচালরত অটোরিকশা মালিকর ফতুল্লা মডেল থানা একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হবে বলে জানায় মালিকপক্ষ।

ঘটনার বিবরনে সূত্র থেকে জানা যায়, গত বেশ কয়েকদিন যাবত শহরের ভেতরে কোন ধরনের অটোরিকশা প্রবেশে কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। শহরের ভেতরে এসব অবৈধ অটো রিকশা প্রবেশ করলে আটক করে নাসিক নগর ভবনে নেয়া হয়। আর এ কারনে আলী আহম্মদ চুনকা সড়কের রহমত উল্লা মার্কেটের সামনে অটোষ্ট্যান্ডে যাত্রী নামাতে না পারার ক্ষোভে এই সড়কে চলচালরত অটো রিকশা চালকরা মালিকদের উপর চড়াও হয় এবং এই মারধনের ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অটো রিকশা মালিকদের পক্ষ থেকে বাবুল মোল্লা ও মোঃ জাকির হোসেন সহ একাধিক মালিকগণ জানান, এই সড়কে প্রতিদিন প্রায় ৮০/১০০টির মত অটোরিকশা চলাচল করে। গত কয়েকদিন পূর্বে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন শহরের ভেতরে অটো রিকশা গাড়ির ষ্টান্ড ২নং রেল গেইটের আশপাশে রাখা যাবে না। যাদের গাড়ি পাওয়া যাবে তাদের গাড়ি জব্দ করে নগর ভবনে নেয়া হবে এবং সর্বোচ্চ দেওভোগ আখড়া মোড় পর্যন্ত গাড়ি রাখার কথা বললে বিনা কারনেই আমাদের মালিকদের উপর চড়াও হয় অটো রিকশা চালকরা। এ ঘটনায় আমাদের বেশ কয়েকজন মালিককে মারধর করা হয়। আমরা এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে যাচ্ছি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অটো রিকশা চালকরা জানায়, সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত শহরের ২নং রেল গেইট এর আশপাশে এসলেই আমাদের অটো রিকশাগুলো নিয়ে যায় সিটি কর্পোরেশনের লোকেরা। মালিকরা কিছুই বলতে পারে না তাদেরকে। আমরা যদি প্রতিদিন রোজগার করতে না পারি তাহলে পরিবার পরিজন নিয়ে আমরা কি ভাবে বাঁচবো।