হিন্দু মন্দিরে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় নগরীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের কয়েক জেলায় হিন্দু মন্দিরে হামলা ও ধর্মী সংখালঘুদের উপর অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে ও দেশপ্রিয় যতীন্দ্র মোহন সেনের চট্রগ্রামের রহমতগঞ্জে অবস্থিত ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের স্মৃতি বিজড়িত ঐতিহাসিক ভবন ভাংচুর এবং রূপগঞ্জের সাওঘাট ঋৃষিপাড়া মন্দিরে ভাংচুর ও হিন্দুপাড়ায় হামলার প্রতিবাদে নগরীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর শাখা।

শনিবার (৯জানুয়ারী) সকাল সাড়ে ১০টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত হয় এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল কর্মসূচী।

বিক্ষোভ মিছিল পূর্বক সমাবেশে বক্তারা বলেন, ধর্ম যার যার রাষ্ট্র সবার। ১৯৭১সালের মহান স্বাধানতা যুদ্ধে হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃষ্টান অনেক বেশী ভূমিকা ছিল। বহু আতœত্যাগের বিনিময়ে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীন একটি দেশ যার নাম বাংলাদেশ। পাকিস্থানে হিন্দু মন্দিরের হামনা সহ হিন্দুদের উপর নানাধরনের অত্যাচার-নির্যাতন হচ্ছে। অভিলম্বে এগুলো বন্ধ করতে হবে পাশাপাশি রূপগঞ্জের সাওঘাট ঋৃষিপাড়া মন্দিরে ভাংচুর ও হিন্দুপাড়ায় যে হামলা ঘটনা ঘটেছে তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি আমরা। মনাববন্ধন শেষে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন তারা।

মানববন্ধনে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃষ্টোন ঐক্য পরিষদের সাধারন সম্পাদক পদীপ কুমার দাস, নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সভাপতি রনজিত মন্ডল, মহানগরের সাধারন সম্পাদক নিমাই দে, যুগ্ন সাধারন সম্পাদক সঞ্জয় দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষ্ণাচার্য, জেলা যুব ঐক্য পরিষদের সভাপতি আন্ন্দ কুমার সেওরাঘী সুমন, সাধারন সম্পাদক ভোজন দাস, এড. অব্ধন দাস ও রিপন কর্মকার, সিদ্ধিরগঞ্জের সভাপতি কালিপদ মল্লিক, জেলা হিন্দু- বৌদ্ধ-খৃষ্টোন ঐক্য পরিষদ নেতা প্রদীপ সরকার সহ প্রমূখ।