এক বছরেও রাস্তা নির্মাণে সেলিম ওসমানের সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন হয়নি!

রিপাের্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের দানবীর সংসদ সদস্য আলহাজ¦ এ,কে,এম সেলিম। যিনি বিগত সময়ে এলাকায় জণকল্যান মূলক কাজে সর্বদা সাহায্য ও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে থাকেন। রাজনৈতিক ভাবেই নয়,তার নিজ উদ্যোগে স্কুল,কলেজ, মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দির রাস্তহাট সহ বিভিন্ন কাজগুলো সাধারন সমানুষের সেবার জন্য তার নিজ অর্থায়ন থেকে সহযোগিতা করে থাকেন। কিন্তুু নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের (সদর-বন্দর) ৭টি ইউনিয়ন যা তদারকি করেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি আলজাহ্ব এ,কে,এম সেলিম ওসমান। প্রতিটি ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা তার সমর্থিত লোক।তাদের ইউনিয়নের যে কোন সমস্যার সমাধান তিনি করে থাকেন। অনেক ইউনিয়নে দেখা যায় তার নিজ অর্থায়ন থেকে স্কুল রাস্তা-ঘাট সহ ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড মূলক কাজগুলো হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ এর চেয়ারম্যানগণরা যখন তাদের এলাকার রাস্তা-ঘাট সহ নানাবিধ সমস্যায় পরেন তখনই তারা তার কাছে ছুটে যান এবং সে সকল কাজের সমস্যাগুলোর সমাধান পেয়ে থাকেন।

কিন্তুু দেখা যায়, নারায়ণগঞ্জ সদর থানার গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদ এলাকাটি অতি গণবসতিপূর্ণ এলাকা। এখানে রয়েছে একটি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা,মসজিদ, ঈদগাহ সহ বেশ কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান। অন্যান্য ইউনিয়নের চেয়েও এই এলাকার ভোটার সংখ্যা অনেক বেশী। এই এলাকার সবচেয়ে বেশী সমস্য হলো রাস্তাঘাট।

সূত্র থেকে জানা যায়, গোগনগর ইউনিয়নের সৈয়দপুর পূর্ব এলাকার ছাদিম আলীর বাড়ি (ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়ক) থেকে সৈয়দপুর কড়ইতলা আইভী সড়ক পর্যন্ত রাস্তাটি নির্মাণকাজের উদ্ধোধন করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ আলহাজ¦ এ,কে,এম সেলিম ওসমান। গোগনগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের গত এক বছর পূর্বে অত্যান্ত জাকজমক ভাবে রাস্তাটি নির্মাণ করার জন্য সাংসদ সেলিম ওসমান সহ এলাকার জনপ্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যাক্তিরা বসে একটি সিদ্ধান গ্রহন করেন। সে সময় সাংসদ সেলিম ওসমান রাস্তাটি নির্মাণ করার কাজ দেন গোগনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওশেদ আলী ও তার ছোট ভাই ফজর আলী, স্থানীয় এলাকার সাবেক জাতীয় ফুটবলার মোঃ সালাউদ্দিন সহ আরো কয়েকজনকে কাজটি সম্পূর্ণ করার জন্য দায়িত্ব প্রদান করেন।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, মাটি ফেলে প্রায় ১ কিলোমিটারের মত রাস্তাটি তৈরী হলেও বাকি শেষ অংশের কাজটি জৈনক ডেলিগ্যাটার আনোয়ার হাসনের মালিকানাধীন জমির সীমানায় গিয়ে বাধা প্রাপ্ত হয় এবং আজ অবদি রাস্তা তৈরীর কাজটি বন্ধ হয়ে রয়েছে। আর সে কারনে ঢাকা-মন্সিগঞ্জ সড়ক ও নারায়ণগঞ্জ শহরমুখী যাতায়াতকারী পথচারি, স্কুলের শিক্ষার্থী সহ সাধারন জনগনের চলাচলে বিগ্ন ঘটছে। সৈয়দপুর বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়ের কয়েকজন শিক্ষার্থীকে ঢাকা-মুন্সিগঞ্জ সড়ক থেকে সরাসরি সৈয়দপুর কড়ইতলা আইভী সড়কে আসতে না পেরে পেছন দিক দিয়ে অত্র রাস্তায় উঠতে দেখা যায়। এ সময় তাদের নিকট প্রশ্ন করা হলে রাস্তায় চলাচলে কি ধরনের সমস্যা হচ্ছে? তারা জানায়, প্রতিদিন এভাবেই আমাদেরকে ঘুরে এসে স্কুলে যেতে হয়। বিভিন্ন প্রকৃকিত দূর্যোগ হলে এই সমস্য আরো বেশী প্রকোট হয়। আর এ কারনে প্রতিদিন সময় মত তারা স্কুলে যেতে পারে না।

স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্র থেকে আরো জানা যায়, সাংসদ সেলিম ওসমান গত এক বছর পূর্বে এ রাস্তাটি নির্মাণ করার জন্য চেয়ারম্যান নওশেদ আলী ও তার ছোট ভাই ফজর আলী, স্থানীয় এলাকার সাবেক জাতীয় ফুটবলার মোঃ সালাউদ্দিন সহ আরো কয়েকজনকে দায়িত্ব দেওয়া হলেও তারা এ বিষয়ে তারা কোন পদক্ষেপ গ্রহন করেনি।