জেনারেটর ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগে আটক ১

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : সদর উপজেলার ফতুল্লার হাজীগঞ্জ এলাকায় মাহবুবুল হক বাবুল (৫১) নামের এক জেনারেটর ব্যবসায়ীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এলাকার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ফতুল্লার মডেল থানা পুলিশ রাকিব নামের একজনকে আটক করেছেন।

রবিবার (৬অক্টোবর) দিবাগত রাত ২টায় ফতুল্লার হাজীগঞ্জ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যবসায়ী মাহবুবুল হক বাবলু হাজীগঞ্জ এলাকার মৃত জালাল উদ্দিনের ছেলে। নিহত বাবুল অতুল (১০) ও ফুল (১৫) নামের দুটি সন্তান রেখে গেছেন।

নিহতের বড় ভাই জুয়েল জানান, বাবলু হাজীগঞ্জ বাজারে টিভি ফ্রিজ মেরামতের দোকান দিয়ে কাজ করে এবং বাজারের দোকান গুলোতে জেনারেটরের সংযোগ দিয়ে ব্যবসা করেন। জেনারেটরের ব্যবসার বিরোধের জেল ধরে স্থানীয় এলাকার সন্ত্রাসী আলম, রাকিব, খালেক সহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজন রবিবার দিবাগত রাত ২টায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে বাড়ি ফেরার পথে এলোপাথারী পিটিয়ে বাবলুকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এরপর স্থানীয়রা বাবলুকে উদ্ধার করে শহরের খানপুর ৩শ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে জরুরী বিভাগের চিকিৎসক বাবলুকে মৃত ঘোষনা করেন। বছর খানেক যাবত স্থানীয় এলাকার বেনু মিয়ার ছেলে আলম ও তার ভাইয়েরা জোরপূর্বক মাহবুবুলের জেনারেটর ব্যবসা দখল করতে চাচ্ছিল।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাওয়া ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এস,আই) মিজানুর রহমান জানান, এ ঘটনায় রাকিব নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশ উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আসলাম হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, এ ঘটনায় রাকিব নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। নিহত মাহবুবুল হক বাবুল জেনারেটর সংযোগের ব্যবসা ও টিভি ফ্রিজ মেরামতের কাজ করতেন। জেনারেটর ব্যবসার বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকান্ডটি সংগঠিত হতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত করে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। ময়না তদন্তের পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারের লক্ষে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।