আড়াইহাজার স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জরুরী বিভাগের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে রোগীকে ভূয়া সনদ দেয়ার অভিযোগ!

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এর জরুরী বিভাগের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে স্থানীয় এলাকার প্রভাবশালী আসামীদের যোগ সাজসে প্রভাবিত হয়ে মরিয়ম বিবি (৪৫) নামের এ নারীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর করার ঘটনায় ভিকটিমের আঘাত গুরুতর হওয়া সত্বেও ইনজুরী রেজিষ্ট্রারের রেকর্ড কাটাকাটি করে ‘সিম্পল ইনজুরি’ লিপিবদ্ধ করে জাল জালিযাতের মাধ্যমে আদালতে ভূয়া সনদপত্র দাখিলের গুরুতর অভিযোগ উঠেছে! এ ঘটনায় ঘটনার স্বীকার ওই নারী নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার বরাবর গত ১৯/০৮/২০১৯ ইং তারিখে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

মামলার বিবরনে মরিয়ম বিবি জানান, তিনি নরসিংদী জেলার মাধবদী থানার ডৌকাদি এলাকায় বাসবাস করেন। গত ০৪/০৫/২০১৯ ইং তারিখ সকাল ১১টার দিকে তুচ্ছ একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করার ঘটনায় স্থানীয় এলাকার মৃত আদাত আলী মুন্সীর ছেলে হালিম (৪৫), আব্দুল কাদিও (৪৫), আবদুল করিম (৪৯), নুরবক্র (৫২), নুর বক্রের ছেলে আশিক ( আশিক (২২), কাদিও মিয়ার স্ত্রী রাশিদা (৪০), হালিম মিয়ার স্ত্রী নাজমা (২৭), করিম মিয়ার স্ত্রী জুলেখা (৪২), এর বিরুদ্ধে বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত “গ” অঞ্চলে পিটিশন মামলা নং-১২২/১৯ দায়ের করেন।

মামলার ধারা ১৪৩/৩৪১/৩২৩/৩২৪/৩২৫/৩২৬/৩০৭/৩৫৪/৩৭৯/৪২৭/৫০৬ দঃ বিঃ দায়ের করেন। এ ঘটনায় আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রর জরুরী বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক ভিকটিমের আঘাত গুরুতর হওয়া সত্বেও ইনজুরী রেজিষ্ট্রারের রেকর্ড কাটাকাটি করে ‘সিম্পল ইনজুরি’ লিপিবদ্ধ করে জাল জালিযাতের মাধ্যমে আদালতে ভূয়া সনদপত্র দাখিল করলে আদালত বিষয়টি পি,বি,আই পুলিশের বরাবরে প্রেরন করেন। পরবর্তীতে উক্ত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলাটির তদন্তকালে আবগত হন মামলার ভিকটিম হোসনে আরাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হালিম একটি ধারালো চাপাতি দিয়ে মাথা বরাবর আঘাত করার চেষ্টা করলে সে হাত দিয়ে ফেরানোর চেষ্টা করলে চাপাতির কোপটি তার মাথায় লেগে সে গুরুতর রক্তাক্ত জখম হয় এবং আঘাতের স্থানে ৫টি সেলাই লাগে।

তিনি আরো জানান, প্রয়োজনীয় স্বাক্ষ প্রমান থাকা সত্বেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলায় বর্নিত ৩২৪/৩২৫/৩২৬ সহ আরো কতক ধারা এবং মামলায় বর্ণিত ৭ ও ৮ নং আসামী বাদে বিজ্ঞা আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও আড়াইহাজার স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এর জরুরী বিভাগের চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আদালতে মরিয়ম বিবি নারজী দরখাস্ত প্রদান করলে বিজ্ঞ আদালত তা মঞ্জুর করে মামলাটি ডিবি পুলিশকে তদন্ত করার নির্দেশ প্রদান করেন। এরপর থেকেই উক্ত আসামীরা উক্ত আসামীরা তাকে চলমান মামলা প্রত্যাহার ও হত্যার হুমকি দিচ্ছে। তিনি তার পরিবার পরিজন নিয়ে বর্তামানে অতি কষ্টে দিন যাপন করছেন। যে কোন মুহুর্তে তার ও পরিবারের উপর হামলা হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করছেন মরিয়ম বিবি।