ভালো কাজ করতে গেলে পিছন থেকে ধাক্কা দিবে, টান দিবে – সেলিম ওসমান

রিপোর্ট নারায়ণগঞ্জ ২৪ : নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সদস্য আলহাজ্ব একেএম সেলিম ওসমান বলেন, যার নামে ১৮টা মামলা আছে ওর কি করে এতো বড় সাহস হয় একটা কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে মামলা দেয়। আমরা সবাই একটা করে মামলা দিয়ে দেখিয়ে দেব মামলা কাকে বলে, চলার পথে যদি বাঁধা আসে তাহলে গুড়িয়ে দেয়া হবে।  জীবনে আনন্দ করবে আর তার পাশাপাশি লেখাপড়া করবে। তবেই জীবনে সফলতা পাবে।

শনিবার(৩০মার্চ) দুপুর ১২ টায় সরকারি মহিলা কলেজ মাঠ প্রাঙ্গনে নবীণ বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর কারনে আজ আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি অথচ মাত্র ৫ ভাগ লোক আমাদের স্বাধীনতার বিরোধীতা করছে। যার ফলে আজকে আমাদের দেশ উন্নয়ণ থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে। আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। যাতে করে এ দেশ উন্নত বিশ্বে রুপান্তরিত হতে পারে।
আমি তোমাদের সামনে শিক্ষামন্ত্রীকে নিয়ে আসব এবং তোমরা তোমাদের দাবি গুলো জানাবে। স্বধীনতার পরে স্বাধীনতা পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুর হত্যার পর তোমাদের মতো একজন মেয়ে এসে দাঁড়িয়েছে দেশ রক্ষার্থে আমাদের স্বাধীনতা রক্ষার্থে। নারায়ণগঞ্জ থেকে রাজনীতি শুরু হয়েছে তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ নারায়ণগঞ্জকে ভালোবাসেন। তোমাদের বড় হতে হবে, হাসতে হবে, আনন্দ করতে হবে, ভালো ফলাফল করতে হবে। আমি অধ্যক্ষকে বলবো ডিজিটাল প্লান আমাকে দিবেন আমি দেখবো। আমরা মাদকের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবো, তোমরা বাদক দল কর যাতে তিনশ জন জন শিক্ষার্থী নিয়ে একটি র‌্যালির আয়োজন করবো। ভালো কাজ করতে গেলে পিছন থেকে ধাক্কা দিবে, টান দিবেএটাই নিয়ম। তোমরা তোমাদের প্রতিভাকে তুলে ধরো। সাংসদ সেলিম ওসমান এ সময় ঘোষনা করেন সকল কলেজের মেয়েরা একসাথে নিয়ে আগামী বৈশাখে ওসমানী স্টেডিয়ামে একটি আনন্দময় অনুষ্ঠান করা হবে ।

নারায়ণগঞ্জ মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরা এ সময় দাবি জানিয়ে সাংসদ সেলিম ওসমানকে উদ্দেশ্যে করে  বলেন,  আধুনিক অডিটরিয়াম রুম, কম্পিউটার ল্যাব, কমোন রুম, কলেজ ক্যান্টিন, রাস্তার পাশে ফুট ওভার ব্রিজ, কলেজের পাশে ব্যক্তি মালিকানাধীন জায়গা, মাজারের সাথে খাস জমি ও কলেজের প্রবেশ পথে জায়গা যেন কলেজ পায় সেজন্য সাংসদ একেএম সেলিম ওসমানের কাছে দাবি জানায়। তখন তিনি প্রশাসন কে উদ্দেশ্য করে বলেন, জেলা প্রশাসক সাহেব আপনি আসেন এবং দেখেন আমার কলেজের ছাত্রীদের কষ্ট। সামনের জায়গাটার ব্যবস্থা নেন না হলে আমি রাস্তা ঘাট সব বন্ধ করে দেব। ১১ হাজার শিক্ষার্থীর দাবি আপনি দেখেন, কেন জায়গা উদ্ধার হচ্ছে না, কিভাবে একের পর এক জায়গা দখল করছে ?

নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ বেদৌরা বিনতে হাবিবের সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে এ সময়  আরো  উপস্থিত ছিলেন, সরকারি তোলাম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর বেলারাণী সিংহ, সরকারি মহিলা কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ দবিউর রহমান,  সরকারি মহিলা কলেজেরসাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর ডাঃ শিরীন বেগম, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাসের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল সহ প্রমূখ।